৪ঠা মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ  রাত ১:৪৩  ১৩ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪৩ হিজরী
১৮ই জানুয়ারি, ২০২২ ইং

ফরিদগঞ্জে গৃহবধূ মরিয়ম বেগমের আত্মহত্যার রহস্য কী?

ফরিদগঞ্জে মরিয়ম বেগম (২০) নামে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (৩ জুলাই) সকালে উপজেলার রূপসা দক্ষিণ ইউনিয়নের চরমান্দারী গ্রামে নিজ বসত ঘর থেকে লাশটি উদ্ধার করে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ।

এদিকে, বৃহস্পতিবার রাতে মরিয়ম বেগম গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে বলে জানায় নিহতের পরিবারের সদস্যরা। তবে কী কারনে গৃহবধু তিনি আত্মহত্যা করেছেন তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। নিহতের স্বামীর বাড়ি ও বাবার বাড়ির লোকজনের সাথে কথা বললে তারা মরিয়মের আত্মহত্যার কারণ সর্ম্পকে জানে না বলে দাবী করেন।

স্থানীয়রা জানান, গত ১১ মাস পূর্বে ফুফাত ভাই ইসমাইল হোসেনের সঙ্গে উপজেলার চরপক্ষিয়া গ্রামের মরিয়ম বেগমের বিয়ে হয়। এ বিষয়ে মরিয়ম বেগমের স্বামী ইসমাইল হোসেন ডেইলি ফরিদগঞ্জকে জানান, বৃহস্পতিবার রাতে খাবার খেয়ে আমি আর মরিয়ম এক সাথে ঘুমিয়ে ছিলাম। পরে দেখি আমার স্ত্রী মরিয়ম আমার পাশে নেই। একাধিক বার তাকে ডাকার পর সাঁড়া না পেয়ে খুঁজতে উঠি। পরে পাশের রুমে আড়াঁর সঙ্গে মরিয়মের জুলন্ত দেহ দেখতে পাই।

অপরএক প্রশ্নের জবাবে তিনি দাবী করেন, মরিয়মের সঙ্গে তার কোন ধরনের ঝামেলা ছিল না। তবে কি কারনে মরিয়ম আত্মহত্যা করেছে এ বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে জানান।

এ বিষয়ে মরিয়মের ভাই মো. কামাল জানান, মরিয়মের সংসারে কোন ধরনের ঝামেলা ছিলনা। বোনের সাথে কথা বললে সে জানাতো খুব ভালো আছে। তবে কি কারনে আত্মহত্যা করলো তা আমাদের জানা নেই। তিনি আরো বলেন, আমার বড় বোন ফারজানা গত কয়েকদিন আগে সন্তান প্রসবকালে মৃত্যুবরণ করেন। আর ছোট বোন মরিয়মও আত্মহত্যা করে আমাদের ছেড়ে চলে গেল।

এ বিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রকিব জানান, গৃহবধূ মরিয়মের আত্মহত্যায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে এবং লাশ ময়নাতদন্ত শেষে পারিবারিক কবর স্থানে দাফন করা হয়।

শিমুল হাছান :