৬ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ  রাত ৮:২৭  ১৬ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪৩ হিজরী
২০শে জানুয়ারি, ২০২২ ইং

ফরিদগঞ্জে ১৫ বছর শিকলবন্দী যুবক

প্রায় ১৫ বছর যাবৎ শিকলবন্দী হয়ে একটি নির্জন ঘরে জীবন কাটছে যুবকটির। খাওয়া দাওয়া ছাড়াও প্রকৃতির ডাকে সাড়াদেয়া সব কাজই হচ্ছে এই ঘরে। ঘটনাটি চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৫নং ইউনিয়নের ভোটাল গ্রামে এ যুবকের নাম হচ্ছে হাফেজ আবদুল খালেক (৩৫)।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, উপজেলার একটি মাদরাসায় পড়াশোনা করতো সে। গত ১৫ বছর পূর্বে সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে হারিয়ে ফেলেন মানসিক ভারসাম্য। পরিবারের লোকদেরকে বকাঝকা করা ছাড়াও উসৃঙ্খল আচরন করতো। পরিবারের সামার্থ্য না থাকায় তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা করানো সম্ভব হয়নি। যে কারনে বাধ্য হয়ে তাকে শিকল বন্দী করতে হয়েছে।

১৪ নভেম্বর রোববার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, যুবকটি শিকলবন্দী হয়ে একা তার বসত ঘরের পাশে একটি দোচালা টিনসেড ঘরে উদোম গায়ে বসে আছে। খাবার সময় হলে তার মা বাটিতে করে খাবার ও পানি পৌছে দেয় ওই ঘরে।

ভারসাম্যহীন আবদুল খালেকের মা শামছুন্নাহার জানান, আবদুল খালেক বিভিন্ন সময় ঘরের আসবাবপত্র ভেংঙে ফেলেন। বিভিন্ন সময় এদিক সেদিক চলে যায়, পরিবারের পক্ষে সারাক্ষণ তাকে দেখে রাখা সম্ভব হচ্ছিল না। এ জন্য তাকে ঘরে শিকল বেঁধে রাখার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হই।

এলাকাবাসী জানায়, অযত্ন আর অবহেলা না করে যুবকটিকে শিকল মুক্ত করে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা পেলে সে ভালো হতো বলে অনেকেই মনে করছেন।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল গনি বাবুল পাটওয়ারী বলেন, ‘বিষয়টি আমি অবগত ছিলাম না। আপনার মাধ্যমে জানতে পেরেছি। তাকে শিকল মুক্ত করতে প্রয়োজনীয় সকল ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হবে।