৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  রাত ৪:৩৮  ২রা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী
২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

করোনা মোকাবেলায় ফরিদগঞ্জে পুলিশের প্রশংসনীয় উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

আপনি ঘরে থাকুন, সচেতন থাকুন, নিজে বাঁচুন-পরিবার বাঁচান, দেশ বাঁচান’ -মাইক হাতে নিয়ে উপজেলা সদর থেকে শুরু করে গ্রামাঞ্চলে গিয়ে এভাবেই মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করছেন ফরিদগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ আব্দুর রকিব। জানা যায়, চাঁদপুর জেলাকে লকডাউন ঘোষনার পর থেকেই ফরিদগঞ্জ উপজেলার সাথে সম্পৃক্ত আশে পাশের উপজেলার বর্ডারগুলোকে চেকপোস্টের আওতায় নিয়ে আসে পুলিশ। করোনা মোকাবেলায় গঠন করা হয় পুলিশের কুইক রেসপন্স টিম।

যেকোনো জরুরি প্রয়োজনে যেকোনো এলাকায় দ্রুত সহযোগিতা প্রদান করছে এ টিম। খারাপ আচরনের মাধ্যমে নয়, ভালো আচনের মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করছেন তারা। এছাড়াও প্রতিদিনই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজারদর নিজের ফেসবুকে প্রচার প্রচারনা ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য স্থিতিশীল রাখতে বিভিন্ন বাজার মনিটরিং করতে দেখা যাচ্ছে পুলিশ প্রশাসনকে। পুলিশের পক্ষ

থেকে প্রতিবন্ধী, ভিক্ষুক, পত্রিকা বিলিকারক ও মধ্যবিত্তসহ প্রায় কয়েকশ পরিবারের মাঝে উপহার স্বরুপ খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিতে দেখা যায়। শুধু তাই নয় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফরিদগঞ্জে করোনা রোগীর লকডাউন বাড়িতে খাদ্যসামগ্রী নিয়ে গেছেন ওসি নিজেই। করোনা ভাইরাসের সংক্রমনরোধে মানুষকে বাসায় অবস্থান করার সচেতনামূলক প্রচার ও বাজার মনিটরিং এর কাজগুলোর প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করেছে ফরিদগঞ্জবাসী। এ উদাহরণের মাধ্যমেই পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে, সীমাবদ্ধতা থাকা স্বত্ত্বেও চাঁদপুরের পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় করোনা প্রতিরোধের ক্ষেত্রে নিরলসভাবে কাজ

করে যাচ্ছে পুলিশ বাহিনী। পরিস্থিতি এবং পারিপার্শ্বিকতা বিবেচনায় হয়তো সব জায়গায় পুলিশের পক্ষে সর্বোচ্চ সেবা প্রদান করা সম্ভব নয়। তবে ইচ্ছা এবং সামর্থের কমতি রাখছে না ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশ। অপরদিকে জেলা পুলিশের সকল ইউনিট মাঠ পর্যায়ে কাজ করছেন মানুষকে সচেতন করার জন্য। সরেজমিনে দেখা যায়, চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মাহাবুবুর রহমান এর নির্দেশনায় ফরিদগঞ্জ থানার ওসি আব্দুর রকিব, ওসি (তদন্ত) সহিদুল ইসলামসহ ফরিদগঞ্জ থানায় কর্মরত সকল

অফিসাররা বিভিন্ন ইউনিটে উপজেলা সদর সহ গ্রামাঞ্চলে প্রচার করছেন। মানুষকে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কাজ করছে পুলিশ। আর এমন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছে উপজেলাবাসী। কয়েকজন সচেতন নাগরিক জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতা সম্পর্কে মানুষজন সচেতন ছিলনা। অবাধে মানুষজন জটলা বেঁধে আড্ডা দিত। পুলিশ নিয়মিত টহল জোরদার করায় এবং করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে সচেতনতামূলক প্রচার করায় মানুষজন

সচেতন হয়েছে। এখন আর জটলা বেঁধে থাকা মানুষজন তেমন দেখা যায়না। উপজেলা কালির বাজার ও ফকির বাজারের কয়েকজন জানিয়েছেন, ফরিদগঞ্জ থানার ওসি আব্দুর রকিব সহ তার সকল অফিসাররা আমাদের এলাকার প্রত্যেকটি হাট-বাজার থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে এসে করোনা ভাইরাসের সংক্রমন থেকে বাঁচতে মানুষজনকে সচেতন করছেন। এতে করে মানুষজন সচেতন হচ্ছে এবং বেশিরভাগ মানুষ ঘরেই থাকছেন। এমন উদ্যোগ সত্যি প্রশংসনীয়। এবিষয়ে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি আব্দুর রকিব জানিয়েছেন, পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশনায় আমরা উপজেলা সদর থেকে শুরু করে গ্রামঞ্চলের প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে নিয়মিত সচেতনামূলক প্রচারসহ

সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করার কাজ করেই যাচ্ছি। মানুষজনও সচেতন হয়েছে ইতোমধ্যে লক্ষ্য করা যাচ্ছে। তিনি বলেন, পুলিশ সুপারের নির্দেশনায় করোনা মোকাবেলায় পুলিশের কুইক রেসপন্স টিম গঠন করা হয়েছে। যেকোনো জরুরি প্রয়োজনে যেকোনো এলাকায় দ্রুত সহযোগিতা প্রদান করা হচ্ছে। খারাপ আচরনের মাধ্যমে নয়, ভাল আচনের মাধ্যমে মানুষকে সচেতন করা হচ্ছে। সাধারণ জনগণকে সরাসরি যোগাযোগ করার জন্য ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোবাইল নং

০১৭১৩৩৭৩৭১৮ সহ ইউনিয়ন ভিত্তিক বিভিন্ন অফিসারদের দায়িত্ব দিয়ে তাদের মোবাইল নং ও ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে। মানুষজন সচেতন হয়েছে যে কোন প্রয়োজনে মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করছেন এবং আমরা সর্বোচ্চ সহযোগিতা করছি। করোনা মোকাবেলায় ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশের সচেতনতা কর্মসূচিসহ নানা ধরনের পদক্ষেপকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন সাধারণ মানুষ। তাই তারা এইসব উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন।