৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  দুপুর ১:২৬  ৩রা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী
২১শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

ফরিদগঞ্জে মেয়রের বিরুদ্ধে সরকারি ত্রাণবিতরণে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহফুজুল হকের বিরুদ্ধে সরকারি ত্রাণ বিতরণে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার বিকেলে ফরিদগঞ্জ বাজারের একটি দ্বিতল ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ৬ জন কাউন্সিলর মেয়রের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ তোলেন। তবে, কাউন্সিলরদের আনিত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন দাবী করেছেন মেয়র মাহফুজুল হক।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পৌরসভার কাউন্সিলর খলিলুর রহমান, মো. ইসমাইল হোসেন (সোহেল), মো. হারুনুর রশিদ, মো. জামাল উদ্দিন, মো. মজিবুর রহমান ও মোসা. ফাতেমা বেগম।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর খলিলুর রহমান জানান, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে ফরিদগঞ্জ পৌরসভার কর্মহীন ও অসহায় মানুষের জন্য ১ হাজার ২০০টি ওএমএস কার্ড, ৩৫ মেট্রিক টন চাল ও নগদ ১ লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা মধ্যবৃত্ত শ্রেণির মানুষ এবং ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জন্য বরাদ্দ দেয় সরকার। বরাদ্দকৃত ১২০০ টি কার্ডের মধ্যে কাউন্সিলরদের মাধ্যমে প্রতি ওয়ার্ডে একশ ৩৩টি কার্ডের নামের তালিকা জমা দিতে গেলে ২৫টির বেশি কার্ড নেওয়া যাবেনা বলে মেয়র আমাদেরকে জানায়। মেয়র মাহফুজুল হক কাউন্সিলরদের দেওয়া কার্ডের তালিকা না নিয়ে উল্টো কাউন্সিলরদের হুমকি-ধমকি দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন খলিলুর রহমান।

খলিলুর রহমান আরো বলেন, ইতোমধ্যে মেয়রের স্বেচ্ছাচারিতার কারণে বিতরণকৃত সরকারি চাল প্রকৃত হতদরিদ্র ও খেটে খাওয়া মানুষজন না পাওয়ায় জনগণের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এবিষয়ে গত ১৬ এপ্রিল ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে কাউন্সিলররা।

শুধুমাত্র কাউন্সিলরদের সাথে সমন্বয় করে তালিকা প্রস্তুত ও বিতরণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করলে সরকারি ত্রাণ ও অর্থ সহায়তার সুষম বন্টন সম্ভব হবে বলে দাবী করেন খলিলুর রহমান ।

এদিকে, কাউন্সিলরদের আনিত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন দাবী করে মেয়র মাহফুজুল হক এ প্রতিনিধিকে জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে সরকারের পক্ষ থেকে পাওয়া সকল ত্রাণ পৌরসভার প্রতিটি ওয়ার্ডে শতভাগ নিয়ম নীতি মেনে তিনি বিতরণ করেছেন। মেয়র কাউন্সিলরদের বিরুদ্ধে পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, প্রতিটি ওয়ার্ডে গিয়ে ত্রাণ বিতরণের সময় কাউন্সিলরদের ফোন করলেও তারা ফোন রিসিভ করছেন না।

উল্লেখ, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে ২০১৮ সালের ২৬ এপ্রিল ফরিদগঞ্জ পৌরসভার ৯ জন কাউন্সিলর মেয়র মাহফুজুল হকের বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে অনাস্থা জানায়।