৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  সকাল ৮:১৮  ২রা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী
২০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

চাঁদপুরে নিজের গলায় বটি দা দিয়ে কেটে ফেলা গৃহবধুর মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিনিধি:
চাঁদপুরের শাহরাস্তি উপজেলার রায়শ্রী দক্ষিণ ইউনিয়নের কুরকামতা গ্রামে আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে বটি দিয়ে নিজের গলা কেটে ফেলা সেই গৃহবধুর মৃত্যু হয়েছে। ৮ মে শুক্রবার সকাল ৯টায় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হতে ফেরার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে শাহরাস্তি থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছে।

জানা যায়, গত ২৯ এপ্রিল বুধবার সকালে ওই গ্রামের বেপারী বাড়ির রাহাতের স্ত্রী শাহীন (২৫) আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে বটি দা দিয়ে নিজের গলা কেটে ফেলে। ওই দিন বিকালে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হতে চিকিৎসা শেষে তার পিত্রালয় শাহরাস্তি পৌরসভার ছিখুটিয়া গ্রামে গিয়ে উঠে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রথমে শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। কুমিল্লা হতে ফেরার পথে শুক্রবার সকালে গাড়িতে তার মৃত্যু হয়।

এদিকে থানায় হত্যার অভিযোগ দায়ের করলেও নিহতের পিতা আবুল কালাম জানিয়েছেন, বিভিন্ন হাসপাতালে ছুটাছুটি করলেও মুলত চিকিৎসার অভাবে তার মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে ধান শুকাতে গিয়ে শাহীন মাথা ঘুরে পড়ে যায়। সাথে সাথে তাকে শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে ভর্তি করা হলে করোনা আতংকে হাসপাতাল রোগীশূন্য থাকায় আমরা রাতেই হাসপাতাল হতে তাকে বাড়ি নিয়ে যাই। শুক্রবার ভোর রাতে তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ভর্তি করা হলে আশপাশে করোনা রোগী থাকায় আমরা তাকে নিয়ে বাড়ির উদ্দেশ্যে যাত্রা করলে পথিমধ্যে তার মৃত্যু হয়।

শাহরাস্তি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহ আলম জানান, ভিকটিমের পিতা এ ঘটনায় মামলা দায়ের করেছে। তদন্ত সাপেক্ষে বিস্তারিত ব্যবস্থা নেয়া হয়ে।

হাজীগঞ্জ ও কচুয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফজাল হোসেন জানান, ঘটনার সাথে ছড়িয়ে পড়া ভিকটিমের ভিডিও বক্তব্যের প্রেক্ষিতে পুলিশ বিশদভাবে তদন্ত কার্যক্রম চালায়। এতে বিষয়টি আত্মহত্যার চেষ্টা বলে তদন্তে উঠে আসে। ভিকটিম তার জবানবন্দীতে হতাশা জনিত কারণে নিজেই নিজের গলায় বটি চালিয়েছে মর্মে জানায় এবং তার দেয়া তথ্যমতে পুলিশ ঘটনায় ব্যবহৃত বটি কুরকামতা হতে উদ্ধার করে।

প্রসঙ্গত, ঘটনার পর পর গৃহবধুর শ্বশুর বাড়িতে গেলে বাড়ির লোকজন ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আহত গৃহবধুর বক্তব্যের একটি ভিডিও ক্লিপ সাংবাদিকদের দেখায়। তাতে ওই গৃহবধু জানায়, অজ্ঞাত দুই দুর্বৃত্ত বসত ঘরের পেছনের দরজা দিয়ে প্রবেশ করে তার হাত-মুখ বেঁধে পাশবিক নির্যাতনের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়। এক পর্যায়ে সে চিৎকার দিতে গেলে তারা ব্লেড ভেঙ্গে তার মুখের ভেতর ঢুকিয়ে স্কচটেপ এঁটে দেয় এবং ব্লেড দিয়ে তার গলা কেটে ফেলে।

ঘটনার সাথে সাথে পুলিশের একটি টীম হাসপাতালে ওই গৃহবধুকে দেখতে আসে। সেখানে গৃহবধুর বক্তব্যের প্রেক্ষিতে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার মুখে স্কচটেপ আঁটার কোন চিহ্ন দেখতে না পেয়ে এক্সরের মাধ্যমে গলার ভিতরের ব্লেড শনাক্ত করতে চেষ্টা করে। এক্সরেতে অস্বাভাবিক কিছু ধরা না পড়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

সাথে সাথেই হাজীগঞ্জ ও কচুয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফজাল হোসেন, শাহরাস্তি থানার অফিসার ইনচার্জ শাহ্ আলম ও পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ শহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। সেখানে ক্রাইম স্পট পরিদর্শনে ঘটনার সাথে গৃহবধুর বক্তব্যের মিল না পেয়ে বাড়ির লোকজনকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। এক পর্যায়ে ভিকটিমের শ্বশুর ইউনুছ মিয়া ও শাশুড়ি ছকিনা বেগম জানায়, পারিবারিক কলহের কারণে বেশ কয়েকদিন ধরেই তাদের পুত্রবধু বলে সে অনেক ভুল করেছে, তাকে যেন ক্ষমা করে দেয়।

ওইদিন বিকেলে শাহরাস্তি থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) আব্দুল আউয়াল ওই গৃহবধুর পিত্রালয় শাহরাস্তি পৌরসভার ছিখুটিয়া গ্রামে গিয়ে ঘটনার পুনঃ বিবরণ জানতে চাইলে গৃহবধু অসংলগ্ন কথা বলতে থাকে। এক পর্যায়ে সে আত্মহত্যার উদ্দেশ্যে এ কাজ করেছে বলে জানায়। এ ব্যাপারে সে অনুতপ্ত ও ক্ষমা প্রার্থী বলেও জানায়। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে শ্বশুরবাড়ি হতে বুধবার রাতেই পুলিশ গলাকাটায় ব্যবহৃত বটিটি উদ্ধার করে।