৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  সকাল ৯:৩২  ২রা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী
২০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

ফরিদগঞ্জের টেলু পাটওয়ারী সৌদিতে স্ট্রোক করে মৃত্যু

লাশ ফিরে পেতে সরকারের কাছে পরিবারে আকুতি

সৌদিআরব দাম্মেমে দীর্ঘ দিনের প্রবাসী টেলু পাটওয়ারী নামে এক বাংলাদেশী শ্রমিক স্ট্রোক করে মৃত্যু হয়েছে ।

চাঁদপুর ফরিদগঞ্জের সৌদি প্রবাসী টেলু পাটওয়ারীর প্রতিবেশী মো. মাহবুব মোল্লা সোহাগ জানান. আমাদের পার্শ্ববর্তী দাম্মাম শহরের খোবারে বসবাস করতেন টেলু পাটওয়ারী । টেলু পাটওয়ারী অত্যন্ত সচ্ছ ও ভালো একজন মানুষ ছিলেন। তিনি গত ২২মে শুক্রবার ভোর স্ট্রোক করলে তাকে দাম্মাম মারকাজি সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় এবং কর্তব্যরত চিকিৎসক টেলু পাটওয়ারীকে মৃত ঘোষনা করেন। তার পারিবারিক আর্থিক অবস্থা ভালো নয়। তাই মৃত টেলু পাটওয়ারীর বাবা-মা স্ত্রী ও তনটি মেয়েসহ পরিবারের লোকজন বাংলাদেশ সরকার ও সৌদি আরবের দুতাবাসকে অনুরোধ করবো মরহুম টেলু পাটওয়ারী লাশ দেশে ফিরে পেতেতে সর্বোত্ত সহযোগিতা কামনা করেন ।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলা সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়নের দক্ষিণ সুবিদপুর ৬নং ওয়ার্ডের রফিক উল্লা পাটওয়ারী ছেলে মরহুম টেলু পাটওয়ারী (৪৬)।

১৯৯৯ সাল থেকে তিনি প্রবাসে রয়েছেন। দীর্ঘ দিনের প্রবাসী থাকলেও আর্থিক ভাবে পরিবারকে সচ্চতায় আনতে পারেনি টেলু পাটওয়ারী। মরহুমের সাংসারিক জীবনে অসুস্থ বৃদ্ধা বাবা রফিক উল্লা পাটওয়ারী (৮০) ও বৃদ্ধা মা (৬৫) এবং ১৩ বছর ১০ বছর ও ৭ বছরের অবুঝের তিনটি কন্যা সন্তান ও স্ত্রী রেখে না ফেরার দেশে চলে গেছেন ।

মরহুমের স্ত্রী জানান, আমার বৃদ্ধ শ্বশুর ও শ্বাশুরী ও অবুঝ তিনটি মেয়ে নিয়ে আমি এখন কি করবো। তার পাঠানো টাকার উপর আমাদের পরিবার নির্ভর ছিলো। আমি এখন অবুঝ ৩টি মেয়ে ও বৃদ্ধা মা ও বাবাকে নিয়ে কি করে বেঁচে থাকবো । আমি বাংলাদেশ সরকারের কাছে অনুরোধ করবো আমার অবুঝ সন্তান ও বৃদ্ধা মা ও বাবার জন্য আমার স্বামী টেলু পাটওয়ারীর লাশ যেনো আমাদের কাছে পৌঁছে দেয়।

মরহুমের গ্রামের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় টেলু পাটওয়ারীর মৃত্যুর সংবাদে শোকের ছাঁয়া যেনো পরিবেশ ভারি হয়ে গেছে। ৩টি কন্যা শিশু সন্তান ও বৃদ্ধা মা বাবার আহাজারীতে আকাশ বাতাস করুন শব্দে ভারী হয়ে যাচ্ছে। এবং স্ত্রীর বোবা কান্না ২ চোখে যেনো হতাশার ছাঁয়া গ্রাস করছে ।

নিজস্ব প্রতিনিধি: