১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ  সন্ধ্যা ৭:৪৭  ২১শে জিলহজ্জ, ১৪৪২ হিজরী
১লা আগস্ট, ২০২১ ইং

সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবুল হাসনাত ও প্রাক্তন শিক্ষক শাজাহান মাষ্টারের মৃত্যুতে সাংসদের শোক

শোক বার্তা


চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক, প্রেসক্লাব এর দপ্তর সম্পাদক সাংবাদিক আবুল হাছনাত হাসেম ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা জানিবুল হক জুয়েল এর পিতা, গল্লাক বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক ও গফুর চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মো. সাজাহান মাষ্টারের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি, চাঁদপুর- ৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনের সাংসদ সাংবাদিক মুহম্মদ শফিকুর রহমান।

মিডিয়াকে দেওয়া এক শোকবার্তায় সাংবাদিক মুহম্মদ শফিকুর রহমান বলেন, করোনা সংকটময় মূহুর্তে ফরিদগঞ্জ উপজেলা আ’লীগ একজন ত্যাগী নেতা ও একজন গুনী মানুষকে হারালো। দুই জনই বাংলাদেশ আ’লীগের দর্শণে বিশ্বাসী, সততা, যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ কর্তব্যনিষ্ঠ ও নিবেদিতপ্রাণ। আবুল হাছনাত তার রাজনৈতিক জীবনে আ’লীগের দুর্দিনে অগ্রভাগে থেকে ছাত্রলীগকে সুসংগঠিত করেছে। দল তথা সংগঠনের জন্য তার ত্যাগ ভূলার নয়। তার এ গৌরবোজ্জল ভূমিকা পালনের জন্য আ’লীগ তাকে চিরদিন শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করবে।

মুহম্মদ শফিকুর রহমান আরো বলেন, আবুল হাছনাত হাসেম জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক, তিনি ৮০’র দশকে ফরিদগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগকে সু-সংগঠিত ও শক্তিশালী করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রত্যেকটি গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে তার বলিষ্ঠ অংশগ্রহণ ছিল প্রশংসনীয়। তার জনসেবা ও দেশের প্রতি অঙ্গীকার সর্বদাই স্মরণীয়।

জানাযায়, আবুল হাসনাত হাসেম শনিবার রাত ২ টা ৫০ বুকে ব্যথা, শ্বাস কষ্ট ও জ্বর সর্দি নিয়ে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে মৃত্যু বরন করেন। এ দিন দুপুরে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাপন করা হয় এবং একই দিন দুপুর ১২ টায় হৃদক্রিড়া বন্ধ হয়ে ঢাকা সরওয়ার্দী হাসপাতালে মৃত্যু বরন করেন সাজাহান মাষ্টার। বাদ মাগরিব জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাপন করা হয়।

উল্লেখ্য, আবুল হাছনাত হাসেম উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক, প্রেসক্লাব ফরিদগঞ্জ এর দপ্তর সম্পাদক ও আওয়ামী গুণিজন সৃতি সংসদের প্রতিষ্ঠাতা, আমৃত্যু সভাপতি ছিলেন এবং সাজাহান মাষ্টার গল্লাক বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক, গফুর চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।