৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  বিকাল ৩:০৬  ২রা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী
২০শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

সাবেক মন্ত্রী আবুল কাশেম ও হুইপ আশরাফের মৃত্যুতে বীর মুক্তিযোদ্ধা বেঙ্গলের শোক

নিজস্ব প্রতিবেদক :

মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক যুবমন্ত্রী আবুল কাশেম এবং জাতীয় সংসদের সাবেক হুইপ, বিএনপির সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মো. আশরাফ হোসেনের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) প্রেসিডিয়াম সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাঈল হোসেন বেঙ্গল।

রবিবার (১৯ জুলাই) গণমাধ্যমে পাঠানো এক শোকবার্তায় বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান এয়ং মুক্তিযুদ্ধে রাজধানী ঢাকার বেঙ্গল প্লাটুনের কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল মরহুম দুই নেতার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন। এবং তাদের শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

শোক বার্তায় বেঙ্গল আরো বলেন, ব্যক্তিগতভাবে আবুল কাসেম আমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিলো। দীর্ঘ দিন আমরা একসাথে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত ছিলাম। তার সাথে আমার বহু স্মৃতি রয়েছে। এই মর্হুতে তাকে হারিয়ে আমি বেদনা বিদূর মন নিয়ে মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি আল্লাহ তার ভূলত্রুটি ক্ষমা করে তাকে জান্নাতুল ফেরদৌস দান করুন।

জানা যায়, আবুল কাশেম জাতীয়তাবাদী যুবদলের প্রথম সভাপতি ছিলেন। যুব মন্ত্রণালয় গঠনের পর তাকে ওই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় এবং পরে এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্বও পান তিনি। বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে দীর্ঘদিন সম্পৃক্ত আবুল কাশেম ’৯০ সালের পর রাজনীতি থেকে নিজেকে গুটিয়ে নেন। ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি দ্বিতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-১৬ আসন (তেজগাঁও) থেকে ধানের শীষ প্রতীকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন তিনি।

উল্লেখ্য, আবুল কাশেম দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিস, হৃদরোগসহ বিবিধ জটিলতায় ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি এক ছেলে ও দুই মেয়ে সহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। আবুল কাশেমের নামাজে জানাজা শনিবার বাদ আসর কুমিল্লা সদর উপজেলার পালপাড়া গ্রামে আছিয়া-গণি গার্লস স্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। পরে কুমিল্লা সদর উপজেলার পালপাড়ায় পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

এদিকে, সাবেক হুইপ ও বিএনপির সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মো. আশরাফ হোসেন শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে রাজধানীর গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। খুলনা অঞ্চলের প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা আশরাফ হোসেন খুলনা-৩ আসন থেকে চারবার এমপি নির্বাচিত হন। ২০০১-০৬ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদের হুইপ ছিলেন তিনি।

উল্লেখ্য, আশরাফ হোসেন দীর্ঘদিন ধরে ক্যান্সার ও হৃদরোগে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি দুই ছেলে ও এক মেয়ে রেখে যান। রাজধানীর নিকুঞ্জ-২ জামে মসজিদে নামাজে জানাজা শেষে গ্রামের বাড়িতে বাবা-মায়ের কবরের পাশে তাকে দাফন করা হয়।