১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  রাত ৮:২৯  ১১ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪২ হিজরী
২৯শে অক্টোবর, ২০২০ ইং

ফরিদগঞ্জে এলজিইডির অবহেলায় গাছ পড়ে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

নিজস্ব প্রতিনিধি:

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের অবহেলায় সড়কের পাশের গাছ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এঘটনায় ক্ষতিপূরণ ও এলজিইডির অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবীতে চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীদের পক্ষে মো. ইমাম হোসেন ভুট্টো।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ফরিদগঞ্জ উপজেলার পাইকপাড়া উত্তর ইউনিয়নের পাটওয়ারী বাজার থেকে শোল্লা বাজার সড়কের শখের বাজার নামক স্থানে ১টি ও শাহী বাজার সড়কে ১টি এলজিইডির সড়কের পাশে দুটি রেইনট্রি কড়ই গাছ ঝুকিপূর্ণভাবে ছিলো। দোকান ও বসত ঘরের উপর হেলেপড়ার আশঙ্কা করে নিরাপত্তার স্বার্থে গাছ দুটি অপসারনের জন্য গত ২ সেপ্টেম্বর ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার কাছে গাছ অপসারনের জন্য লিখিত আবেদন করেন মো. ইমাম হোসেন। উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা ষিয়টি আমলে নিয়ে উপজেলা প্রকৌশলীকে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ প্রদান করেন। পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী প্রকৌশলী জিয়াউল ইসলাম মজুমদার তারই দপ্তরের সিও জহিরুল ইসলাম কে গাছ অপসারনের বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ প্রদান করেন। পরে এসও আইউব খান ও সিও জহিরুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে ঘটনাস্থল থেকে ফিরে আসেন। পরবর্তীতে গাছ অপসারনের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সাথে অভিযোগকারী মো. ইমাম হোসেন একাধিকবার যোগাযোগ করেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষ ব্যবস্থা গ্রহণ না করে কালক্ষেপণ করতে থাকে।

এলজিইডির যথাযথ ব্যবস্থা না নেওয়ার কারনে এবং রাস্তা সংস্কার কাজ করতে গিয়ে গাছের শেকড় কেটে দেওয়ায় গত ২৩ সেপ্টেম্বর রাতে ঝড় বৃষ্টিতে একটি গাছ ইমাম হোসেনের আধাপাকা টিনসেট দোকানসহ আশপাশের কয়েকটি দোকানে গিয়ে পড়ে। এতে ইমাম হোসেনেরসহ অন্যান্য দোকান গুলোর ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এঘটনায় ক্ষতিপূরন ও দায়িত্বে অবহেলার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য গত ২৪ সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীদের পক্ষে মো. ইমাম হোসেন।

এ বিষয়ে ভূক্তভোগীরা জানায়, গাছ গুলো দোকান ও বসত ঘরের উপর হেলেপড়ার আশঙ্কা করে নিরাপত্তার স্বার্থে গাছ দুটি অপসারনের জন্য গত ২ সেপ্টেম্বর ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তার কাছে গাছ অপসারনের জন্য সকলের পক্ষে লিখিত আবেদন করেন মো. ইমাম হোসেন। আবেদনের আলোকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং সকলকে আস্বস্ত করেন। কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অর্থ দাবী করে এবং টাকা না দেওয়ায় কর্তৃপক্ষ নানা টালবাহানার করতে থাকে। অতঃপর গত ২৩ সেপ্টেম্বর তারিখ রাতে অতি বৃষ্টি ও ঝড়ের কারনে ১টি রেইনট্রি কড়ই গাছ কয়েকটি দোকানের উপর হেলে পড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। নিরুপায় হয়ে আমরা গত ২৪ সেপ্টেম্বর ক্ষতিপূরন ও দোষীদের শাস্তির দাবীতে জেলা প্রশাসক স্যারের কাছে লিখিত অভিযোগ করি।

তারা আরো বলেন, রাস্তা সংস্কারের কাজ করতে গিয়ে তারা গাছের সিংহ ভাগ শেকড় কেটে দেয়।

এ বিষয়ে এলজিইডি প্রকৌশলী জিয়াউল ইসলাম মজুমদার জানান, ঝুকিপূর্ন গাছ অপসারনের অভিযোগ পেয়েছি এবং গাছ অপসারনের জন্য সিও জহিরুল এইসলাম দায়িত্ব দিয়েছি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, ঝুকিপূর্ন গাছ অপসারনের জন্য ইমাম হোসেন নামে এক ব্যক্তি লিখিত ভাবে জানানোর পর বিষয়টি সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠিয়েছি। কি কারনে গাছ অপসারন করা হয়নি তা আমি খতিয়ে দেখছি। তবে কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারনে সাধারন মানুষের যে ক্ষতি হয়েছে তা অত্যন্ত দূঃখ জনক।