১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  দুপুর ২:৪৫  ১৩ই রবিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
২৯শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ১২ লাখ ছাড়াল

বার্তা কক্ষ:

সর্বনাশা করোনা ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে গোটা বিশ্বে। ১১ মাসেও এর দাপট এতটুকু কমেনি। বিশ্বের কোনো কোনো দেশে করোনা মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হয়েছে। মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে। এরই মধ্যে করোনায় মৃত্যুর মিছিলে যোগ হয়েছে ১২ লাখ মানুষ।

করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যুর হিসাব রাখা আন্তর্জাতিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, রোববার বেলা ১১টা পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী ৪ কোটি ৬৩ লাখ ৯৪ হাজার ১২ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মারা গেছেন ১২ লাখ ৩৯৭ জন। আর আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ কোটি ৩৪ লাখ ৮৭ হাজার ৬৬৭ জন।

করোনা সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে করোনা আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ৯৪ লাখ ২ হাজার ছাড়িয়েছে। মারা গেছেন ২ লাখ ৩৬ হাজারের বেশি মানুষ। আর সুস্থ হয়েছেন ৬০ লাখ ৬২ হাজার ৪৩৮ জন।

যুক্তরাষ্ট্রের পরই আক্রান্তে দ্বিতীয় স্থানে আছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভারত। দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৮১ লাখ ৮২ হাজার ৮৮১ জন। মহামারীতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১ লাখ ২২ হাজার ১৪৯ জন। মোট সুস্থের সংখ্যা ৭৪ লাখ ৮৯ হাজার ২০৩।

মৃত্যুতে তৃতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে আক্রান্তের সংখ্যা ৫৫ লাখ ৩৫ হাজার ৬০৫। এর মধ্যে ১ লাখ ৫৯ হাজার ৯০২ জনের প্রাণহানি হয়েছে। আক্রান্তদের মধ্য থেকে সুস্থ হয়েছেন ৪৯ লাখ ৭২ হাজার ৯৯৮ জন।

এদিকে বাংলাদেশে স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া তথ্যমতে, শনিবার পর্যন্ত মোট ৪ লাখ ৭ হাজার ৬৮৪ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। মৃতের সংখ্যা ৫ হাজার ৯২৩ জন। এখন নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ২৪ হাজার ১৪৫ জন।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহানে প্রথম করোনা ধরা পড়ে। গত ১১ মাসে এটি বিশ্বের ২১৩ দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে।

সবচেয়ে আক্রান্ত অঞ্চলগুলোর মধ্যে রয়েছে ইউরোপীয় অঞ্চলের দেশগুলোর নাম। মাঝে কিছুটা স্থির হলেও সেখানে আবারও নতুন করে রোগটির প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। ইউরোপের দেশ ইতালি, ফ্রান্স ও ইংল্যান্ডসহ কয়েকটি দেশ ফের লকডাউন ঘোষণা করেছে। এদিকে সেকেন্ড ওয়েভের সংক্রমণ দ্রুত বাড়ছে আমেরিকার দুই মহাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ায় দেশগুলোতেও।

চলতি বছরের ১১ মার্চে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) এটিকে বিশ্বব্যাপী মহামারী ঘোষণা করে।