৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  রাত ৩:২৯  ৭ই রবিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
২৪শে নভেম্বর, ২০২০ ইং

ফরিদগঞ্জে কাল্পনিক ঘটনা রচনা করে প্রতিবন্ধীকে দিয়ে আদালতে মামলা!

নিজস্ব প্রতিনিধি:

ফরিদগঞ্জের আলোনিয়া গ্রামের শাহ আলম ও জাহাঙ্গীর এরা দুজনেই একই বাড়ির। সম্পর্কে এরা চাচাতো ভাই। মজার বিষয় হলো এরা আবার দু’জনেই নিঃসন্তান দম্পতির পালিত সন্তান। সম্পত্তিগত বিরোধকে কেন্দ্র করে একটি কুচক্রী মহলের ইন্ধনে জাহাঙ্গীরকে দমাতে প্রতিবন্ধী শাহ আলমকে দিয়ে চাঁদপুরের আদালতে একটি পিটিশন মামলা দেয়ার গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মামলায় চাচাতো ভাই জাহাঙ্গীরকে প্রধান আসামী গত ১৪ অক্টোবর  ১০ জনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দিয়েছে প্রতিবন্ধী শাহ আলম। মামলার আরজিতে বলা হয়েছে জাহাঙ্গীরের নের্তৃত্বে ১০ জন শাহ আলমের বসত ঘরের সামনে উপস্থিত হয়ে শাহ আলমকে ব্যাপক মারধর করা ছাড়াও বাড়িতে হামলা ও লুট পাটের অভিযোগ তোলা হয়েছে। গত ১২ অক্টোবর শাহ আলমের বাড়িতে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। পরে চাঁদপুর সদর হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিয়ে ডাক্তার নূরে আলম মজুমদারের কাছ থেকে একটি সার্টিফিকেট সংগ্রহকরে চাঁদপুরের আদালতে মামলা দিয়েছে শাহ আলম।

ঘটনাটি রচনা করেছে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১১ নং পূর্ব চর দুঃখিয়া গ্রামের ৮নং ওয়ার্ড পশ্চিম আলোনিয়া গ্রামে একটি কুচক্রী মহলের ইন্ধনে শাহ আলমের পরিবার।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেলো গত ১২ অক্টোবর শাহ আলমের বাড়িতে হামলার  কোন ঘটনাই ঘটেনি। এমনকি শাহ আলমের পরিবার ছাড়া ওই বাড়ির সবাই উক্ত অভিযোগের কথা শুনে সবাই হতবাক হয়ে বলেছে, জাহাঙ্গীরের নের্তৃত্বে কখনোই শাহ আলমের পরিবারের সদস্যেদের উপর কোন হামলার ঘটনাই ঘটেনি। তবে শাহ আলমের সাথে তারই নিকট আত্বীয়দের সাথে জায়গা জমির ভোগ দখল নিয়ে ইতিপূর্বে হামলা মামলার ঘটনা ঘটেছে ।

এ ঘটনারপর শাহ আলমের প্রতিপক্ষ মফিজ, শাহাজান ও জুয়েলসহ কয়জনের সাথে জাহাঙ্গীরের সাথে সম্পর্ক রয়েছে।  এই সর্ম্পকের কারনেই মূলত একটি তৃতীয় পক্ষের ইন্ধনে জাহাঙ্গীরকে দমাতে আদালতে মিথ্যা মামলা দিয়েছে। বাড়ির লোকজন জানায়, মৃত সফিউল্লার ছেলে শাহ আলম ও মৃত মুকবুল আহাম্মেদের ছেলে জাহাঙ্গীর এরা দু জনেই পালিত সন্তান।

এ নিয়ে বাদীপক্ষ শাহ আলমের স্ত্রী মর্জিনা বেগম বলেন, আমার স্বামী গত প্রায় ৮ বছর যাবত প্যারালাইসিসে প্রতিবন্ধী হয়ে আছে। তিন সন্তান নিয়ে খুব কষ্টে দিন কাটাচ্ছি। বর্তমানে আমাদের অসহায়ত্বকে পূঁজি করে জাহাঙ্গীর সহ একদল লোক আমাদেরকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করছ্ ে। যে কারনে নিরুপায় হয়ে আদালতের আশ্রয় নিয়েছি।

প্রতিপক্ষ জাহাঙ্গীর বলেন, শাহ আলম তো আমার চাচাত ভাই। শাহ আলমের সাথে তাদের আত্মীয়দের সাথে জায়গা জমি নিয়ে বিরোধ রয়েছে। একটি পক্ষ আমার সাথে যোগাযোগ রাখায় মূলত আমাকে দমাতে এলাকারই স্বার্থন্বেষী একটি কুচক্রী মহলের ইন্ধনে আমার বিরুদ্ধে আদালতে মিথ্যা মামলা দায়ের করেছে।

এলাকার ইউপি  মেম্বার দেলোয়ার হোসেন বলেন, দুই পালিত সন্তানের মধ্যে এক সময়ে মিল থাকলেও এখন একটি কুচক্রী মহলের ইন্ধনে জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে কেউকেউ ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে উঠেপড়ে লেগেছে বলে আমি মনে করি। এ কাল্পনিক ঘটনা রচনাকারিদের বিরুদ্ধে প্রশাসন ব্যবস্থা নিবে বলে আমি মনে করি। তা না হলে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা হারাবে সচেতন মহল।