৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ  সকাল ৮:৪৫  ৫ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী
১৯শে জানুয়ারি, ২০২১ ইং

ফরিদগঞ্জ স্ত্রী দায়ের করা মামলার বিষয়ে মেয়র মাহফুজুল হকের সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিনিধি:

ফরিদগঞ্জের মেয়র মাহফুজুল হকের বিরুদ্ধে যৌতুক ও নারী নির্যাতনের দায়ে স্ত্রী সোনিয়া আক্তারের দায়ের করা আদালতে মামলার বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মো: মাহফুজুল হক।

২২ নভেম্বর রোববার দুপুরে ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, তিনি ষড়যন্ত্রের শিকার। যখনই তার দলীয় বা নির্বাচন সামনে আসে, ঠিক তখনই একটি চক্র তাকে নানাভাবে হেনস্তা করার জন্য উঠে পড়ে লাগে। সেই অনুযায়ী আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে তিনি যখন নির্বাচন করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন তখনি, তার স্ত্রীকে দাবার ঘুঁিট হিসেবে প্রতিপক্ষরা ব্যবহার করে তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করিয়েছেন। মামলার পুরো বিবরণ পড়লে যে কেউ নিশ্চিত হবে এটি সাজানো বলে দাবী করেন মেয়র মাহ্ফুজুল হক।

তিনি আরো জানান, প্রেম করে বিয়ে করলেও তিনি কখনো সুখি ছিলেন না। তার স্ত্রীর অর্থ লোভ, সংসারের প্রতি উদাসিনতা এবং পরিবারের অন্য সদস্যদের সাথে অশোভন আচরণের কারণে তিনি সর্বদা ভীত ছিলেন। প্রায়শই তিনি তার স্ত্রীর মারমুখি আচরণের শিকার হতেন। নারী নির্যাতন নয়, তিনি পুরুষ নির্যাতনের শিকার হয়েছেন দাবী করেন। এককথায় বলতে হয় তার স্ত্রী সোনিয়া আক্তার মানসিক ভাবে অসুস্থ। প্রায়ই সে তার তিন সন্তানকে ফেলে রেখে ঘর থেকে বেরিয়ে যেত। ফলে বাধ্য হয়ে তিনি তার পরিবারের সদস্যদের সাতে পরামর্শ করে ছোট ছোট তিনটি সন্তানকে পালন করতে দ্বিতীয় বিয়ে করতে বাধ্য হন। তারপরও তার প্রথম স্ত্রী সোনিয়া ফিরে আসতে চাইলে তিনি সন্তানদের দিকে তাকিয়ে তাকে ঘরে তুলে নিবেন।

সংবাদ সম্মেলনে ফরিদগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সম্পাদকসহ চাঁদপুর ও ফরিদগঞ্জ উপজেলার সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ১৭ নভেম্বর পরকীয়া, মাদকসেবন, স্ত্রী নির্যাতন মামলায় মেয়র মাহফুজুল হকের বিরুদ্ধে চাঁদপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ ( সংশোধিত ২০০৩ এর গ) ৩০ ধারায় মেয়র মাহফুজুল হকের স্ত্রী সোনিয়া বাদী হয়ে ২ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন ।