১৬ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ  বিকাল ৪:০৬  ২০শে জিলহজ্জ, ১৪৪২ হিজরী
৩১শে জুলাই, ২০২১ ইং

সন্ত্রাসী যেই হউক না কেন তার কোন ছাড় নেই: সংসদ সদস্য মুহম্মদ শফিকুর রহমান

নিজস্ব প্রতিনিধি:

ফরিদগঞ্জ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য মুহম্মদ শফিকুর রহমান বলেছেন, সমাজ ব্যবস্থা সঠিক রাখতে অবশ্যই অপকর্মকারীদের সর্ম্পকে সজাগ থাকতে হবে। তাদের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করতে হবে। আমরা যদি আমাদের নিজেদের লাভের কথা চিন্তা করে সমাজে প্রকাশ্যে অপকর্মকারী ও সন্ত্রাসীদের প্রশয় দেই, তাহলে সামাজিক বন্ধন নষ্ট হয়ে যাবে। আমাদের উপর থেকে মানুষের আস্থা উঠে যাবে। পুলিশ বাহিনীকেও এসব বিষয়ে আরো তৎপর হতে হবে। কোন রকম ছাড় দেয়া চলবে না। আমাদের মনে রাখতে হবে, সন্ত্রাসী যেই হউক না কেন তার কোন ছাড় নেই। যদি সে আমার দলের কর্মীও হয়। কারণ সন্তোষপুরে প্রকাশ্য দিবালোকে জনবসতিপূর্ণ এলাকায় বাড়িঘর জ¦ালিয়ে , ভাংচুর ও লুটপাট করেই ক্ষ্যান্ত হয়নি সন্ত্রাসীরা, গোয়াল ঘরের গরু পর্যন্ত চুরি করেছে। সভ্য দেশে এরকম অরাজক পরিস্থিতি মেনে নিতে পারি না।

তিনি রোববার বিকালে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ১১নং চরদু:খিয়া পুর্ব ইউনিয়নের সন্তোষপুর গ্রামে খলিফা বাড়িতে কয়েকদিন পুর্বে নৃশংস ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে একথা বলেন। এসময় তিনি ক্ষতিগ্রস্থতে শান্তনা দেন এবং তাদের পাশে থাকার ঘোষনা দেন। একই সাথে থানা পুলিশকে দ্রুত সন্ত্রাসী ও তাদের আশ্রয়দাতাদের আটকের নিদের্শনা দেন।

ঘটনাস্তল পরিদর্শস কালে উপস্থিত ছিলেন, আ’লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক উপকমিটির সাবেক সদস্য ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি খাজে আহমেদ মজুমদার, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান শাহীন, সিনিয়র যুগ্মআহবায়ক হেলাল উদ্দিন আহমেদ, আ’লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম পালোয়ান, জিএম হাছান তাবাচ্চুম, তোফায়েল পাটওয়ারী, নজরুল ইসলাম সুমন, উপজেলা কমউিনিটি পুলিশিং এর সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দীন খান বাহার, উপজেলা যুবলীগের যুগ্মআহবায়ক আল- আমিন পাটওয়ারী, সদস্য আব্দুল গাফ্ফার সজিব, আলাউদ্দিন ভূঁইয়া, সুমন পাটওয়ারী, জাকির হোসনে, রাশেদ বেপারী, কাশেম ঢালী, মজিবুর রহমান প্রমুখ।


উল্লেখ্য, গত ২২ ফ্রেব্রুয়ারী সোমবার বিকালে ১১নং চরদু:খিয়া পুর্ব ইউনিয়নের সন্তোষপুর গ্রামে খলিফা বাড়িতে প্রকাশ্যে সন্ত্রাসীরা গুলি করে আতংক সৃষ্টি করে একটি বসত ঘর আগুনে পুড়িয়ে দেয়া ও আরো ১২টি বসত ঘর ভেঙ্গে তচনছ করেই ক্ষ্যান্ত হয়নি সন্ত্রাসীরা। ওই বাড়ির দুটি গোয়ালঘর থেকে ৭টি গরু চুরি করে নিয়ে গেছে। ওই ঘটনায় ব্যাংক কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ ও তার পরিবারের ৪ সদস্যসহ ৬জন গুরুতর আহত হয়। আগুনে ধ্বংশস্তুপে পরিনত ঘরের লোকজন খোলা আকাশের নিচে বসবাস করছে। থানা পুলিশ এই ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় ২জন আটক ও চুরি হওয়া ৩টি গরু উদ্ধার করেছে।