১১ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ  রাত ৮:৫৯  ২রা রজব, ১৪৪৪ হিজরি
২৫শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ফরিদগঞ্জে জাতির পিতার প্রতি ব্যতিক্রমী ভালোবাসার নিদর্শন স্থাপন

এমকে মানিক

পাঠানশতবর্ষের স্বাক্ষী তুমি হে মহান। জন্ম তোমার ইতিহাস হবে। দেশ হবে মহিয়ান। তুমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু কে স্বৃতি চারন হিসেবে স্বেত পাথরে লিখা ৪ টি ছোট বাক্য দিয়ে ব্যতিক্রমী সাজে ফরিদগঞ্জের ১২ নং চরদুখিয়া ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের সামনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মূরাল নির্মাণ করে নেতার প্রতি গভীর ভালবাসার নিদর্শন স্থাপন করেছেন উক্ত ইউনিয়নের প্রভাবশালী চেয়ারম্যান হাসান আবদুল হাই।

এ উপজেলায় ১৫ ইউনিয়নের মধ্যে একমাত্র উক্ত ইউনিয়নের পরিষদের সামনে স্থাপিত বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি স্থাপনের মধ্যে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি গভীর ভালবাসার নিদর্শন স্থাপন করেই ক্ষান্ত নয় ইউপি চেয়ারম্যান হাসান আবদুল হাই। এবার তিনি বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি আরো শোভাবর্ধন করতে এর পাশেই আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীক নৌকা দিয়ে ব্যতিক্রমী ও নান্দনিক ভাবে পানির ফোয়ারা নির্মানের উদ্যগ নিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে ওই ইউ পি চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত উদ্যোগে উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা চৌমুহনী বাজারে প্রায় এক বছর পূর্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এটি নির্মাণ করতে ইউনিয়ন পরিষদের প্রায় দুই লাখ টাকা ব্যায় হয়েছে। এটি নির্মানের পর তা আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করতে উপজেলা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তি ছাড়াও জনপ্রতিনিধি দাওয়াত দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই সময়ে করোনা পরিস্থিতি ব্যাপক আকারে রুপ নেয়ায় আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করা সম্ভব হয়নি।

ইউ পি চেয়ারম্যান হাসান আবদুল হাই দাবি করে বলেন, বাংলাদেশের কোন ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের সামনে জাতির পিতার মূরাল আছে বলে আমার জানা নেই।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মূরালের পাশেই নৌকা সহ একটি নান্দনিক পানির ফোয়ারা নির্মানের উদ্যোগ রয়েছে বলে আরো জানান, যে নেতার জন্ম না হলে আমরা একটা স্বাধীন দেশ পেতাম না।এমন নেতার স্মৃতি ধরে না রাখতে পারলে আমরা একটা অকৃতজ্ঞ জাতি হিসেবে থাকতে হবে।